শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১১:৪০ অপরাহ্ন

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

তোফায়েল হোসেন
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৫ মার্চ, ২০২১
  • ৫৮৪ বার পঠিত

১৪ মার্চ ২০২১ তারিখে স্থানীয় দৈনিক পশ্চিমাঞ্চল পত্রিকার প্রথম পাতায় প্রকাশিত ‘আদালতের আদেশ অমান্য করে রাতের আঁধারে প্রতিবন্ধীর বাড়ি-ঘর ভাংচুর করে উচ্ছেদের অভিযোগ’ শিরোনামের সংবাদটি দৃষ্টিগোচর হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদে উপস্থাপিত সকল অভিযোগ শতভাগ মিথ্যা ও বানোয়াট। সাংবাদিককে কে বা কাহারা ভুল তথ্য দিয়ে এ ধরনের সংবাদ পরিবেশন করিয়েছেন। সংবাদে টিন শেডের যে ঘরের ছবি ছাপানো হয়েছে সেটিও অন্য কারো ঘরের ছবি। প্রতিবেদক অভিযুক্ত কারো সাথে বক্তব্য না নিয়ে তার মনগড়া তথ্য দিয়ে সংবাদটি পরিবেশন করেছেন। এই ধরনের মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ পরিবেশন করে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করা হয়েছে।

সংবাদে যে জমি নিয়ে বিরোধের কথা বলা হয়েছে সে জমি নিজেদের দাবী করে একটি দেওয়ানী মামলা দায়ের করেছেন আবু তাহের গং। যার মামলা নং- ৯০/২০১৫। যাতে বিবাদী করা হয়েছে সিদ্দিকুর রহমান, সামসুর রহমান ও সাব্বির রশিদকে। প্রকৃতপক্ষে নালিশী আরএস ১১১০ খতিয়ানের ২৫৯ দাগের ১৬ শতক জমি বিবাদীগণ দীর্ঘ প্রায় ৫০ বছর ধরে ভোগদখল করে আসছেন। তাদের নিজ নামে রেকর্ডকৃত ঐ সম্পত্তির উপর খারিজ-খাজনাও প্রচলিত আছে। বাদীগণের কোন কাগজপত্র নেই। ২৯/০৭/১৯ তারিখে কাথুলি ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা এবং ১৭/১০/১৯ তারিখে সহকারী কমিশনার মাহমুদুল হাসান নালিশী জমি বিবাদীদের ভোগ দখলে আছে বলে আদালতে প্রতিবেদন পেশ করেছেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্যের কথা বলা হলেও দেওয়ানী মামলা ছাড়া আদালতের কোন আদেশ নেই। ওয়ারিশ পলাশ আহম্মেদের যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে সেটিও মনগড়া। পলাশ সিদ্দিকুর রহমানের কোন ওয়ারিশ নয়।
বাদী আবু তাহের তার স্ত্রী সন্তান নিয়ে নালিশী জমির একশ গজ দূরে বিবাদীদের দয়ায় বিবাদীদের দেওয়া ২৫৫ দাগের অপর একটি জায়গার উপর টিন শেডের ঘর নির্মাণ করে দীর্ঘ প্রায় ৪০ বছর ধরে বসবাস করে আসছেন। গ্রামের বিশ্বাস পাড়ার ওয়াক্তিিয়া মসজিদের উত্তর-পশ্চিম কোনে অবস্থিত সে বাড়িতে এখনও তারা অবস্থান করছেন। প্রকৃত পক্ষে নালিশী জমির উপর কোন ঘর-বাড়ি ছিল না, এখনও নেই। রয়েছে লিচু, আম সহ অন্যান্য গাছ গাছালি। বরং বাদীগণ গত তিন মাস থেকে নালিশী জমি অবৈধভাবে দখলের নানা অপচেষ্টা করে আসছেন। যার ফলে শনিবার সকালে বিবাদীগণ কয়েকজন লোক দিয়ে ওই জমি তারের বেড়া দিয়ে ঘিরেছেন।
সংবাদে বলা হয়েছে আবু তাহেরের ভাই কালামের ছেলের বউ মুর্শিদা খাতুনের নিকট থেকে মোবাইল ফোন, সোনার দুল ও চেইন ছিনতাই করা হয়েছে। বেড়া দেয়ার সময় বাদী আবু তাহের গং-এর কেউই সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। কাজেই ছিনতাইয়ের কোন প্রশ্নই আসে না। অসৎ উদ্দেশ্যে আবু তাহেরকে মারধরের নাটক সাজিয়ে হাসপাতালে ভর্তি দেখানো হয়েছে। এ সংবাদে কাথুলি ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানাকে ইন্ধনদাতা হিসেবে প্রভাবিত করা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে তাঁর কোন সংশ্লিষ্টতা নেই বরং সংবাদে নাম ব্যবহাার করে তার মান ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টা করা হয়েছে । এ সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

সামসুর রহমান
পিতা-মৃত আব্দুর রশিদ
গ্রাম- গাড়াবাড়িয়া
কাথুুুুলী, গাংনী, মেহেরপুর

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2021 gangnisongbad.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
ThemesBazar-Jowfhowo